ছাতক উপজেলা আওয়ামীলীগের ৪৬ তম জাতীয় শোক দিবস পালন।
ছাতক উপজেলা আওয়ামীলীগের ৪৬ তম জাতীয় শোক দিবস পালন।2
ads service ads service ads service
ADVERTISEMENT

Copyright Warning: Text or images on this website cannot be copyrighted without permission. If you copyright, you will be sued under the Copyright Act 1974 and 2000. Take a look at what copyright law has to offer.  

ছাতক উপজেলা আওয়ামীলীগের ৪৬ তম জাতীয় শোক দিবস পালন।

bctimesbd

bctimesbd

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Content Protection by DMCA.com
83 Views

সেলিম মাহবুব, ছাতকঃ
সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে দলীয় কার্যালয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৪৬তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে রোববার সকাল ১০ ঘটিকা সময় ছাতক পৌরসভায় স্থাপিত বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্যে দিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। কালো ব্যাজ ধারণ, বাদ যোহর ছাতক কেন্দ্রীয় বাসস্ট্যান্ড জামে মসজিদে স্বাধীন বাংলার মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ পরিবারের সকলের রুহের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয় এবং সন্ধ্যায় বিশেষ প্রাথনা ছাতক মহাপ্রভুর আখরায়। বিকেলে আলোচনা সভা ও অসহায় ও হতদরিদ্র মধ্যে খাবার বিতরণ করা হয়।

ছাতক উপজেলা আওয়ামীলীগের ৪৬ তম জাতীয় শোক দিবস পালন।
ছাতক উপজেলা আওয়ামীলীগের ৪৬ তম জাতীয় শোক দিবস পালন।

বিকেলে আওয়ামীলীগের কার্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। ছাতক উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য ও কালারুকা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক নুর উদ্দিন’র সভাপতিত্বে ও ছাতক উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক ও সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদ সদস্য আজমল হোসেন সজল’র পরিচালনায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক ও ছাতক পৌরসভার মেয়র আবুল কালাম চৌধুরী, প্রধান বক্তার বক্তব্যে রাখেন সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সদস্য শামীম আহমদ চৌধুরী, সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য ও ছাতক সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম, সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগ নেতা ও সিংচাপইড় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন মোহাম্মদ সাহেল, যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগ নেতা আশিকুল ইসলাম আশিক, পৌর কাউন্সিলর ইরাজ মিয়া, লিয়াকত আলী, হাজী নাজিমুল হক, সাবেক কাউন্সিলর ধন মিয়া, উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা এমাদুল হক এমাদ, আমিনুর রশীদ তালুকদার আমিন, আব্দুর রইছ, নোয়ারাই ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ডাঃ রেদওয়ানুল হক আরজু, দোলার বাজার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, আওয়ামীলীগের নেতা কাওসার আহমদ।


সভায় আরও বক্তব্য রাখেন ছাতক উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বারী চপল, ছাতক উপজেলা যুবলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন চয়ন, দেলোয়ার মাহমুদ জুয়েল বক্স, আজিজুর রহমান, নুরুজ্জামান চৌধুরী সম্রাট, জাহাঙ্গীর আলম তারেক, সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক গণযোগাযোগ সম্পাদক, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান হুমায়ুন কবির রুবেল, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি জামায়েল আহমদ ফরহাদ, ছাতক সরকারি ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি রিয়াদ চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক রুবেল তালুকদার জনি, রাজিব তরফদার, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল বাসিত।


এসময় উপস্থিত ছিলেন সেচ্ছাসেবকলীগ নেতা সাবলিক মিয়া, রনো দাস, শহিদুল হক, কলেজ ছাত্রলীগ নেতা তোফায়েল তালুকদার, সাজ্জাদ আহমদ, ইসলামপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগ নেতা তারেক রহমান, রেজু খান, তৌহিদুর রহমান, মামুন মিয়া, সুজন মিয়া, মোহসীন আহমদ রাহাত, পাভেল আহমদসহ উপজেলা ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও সেচ্ছাসেবকলীগের নেতৃবৃন্দ প্রমুখ। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন বাংলা ও বাঙালির মহানায়ক, স্বাধীন বাংলার মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এমন এক জাতি জন্ম দিয়ে গেছেন, যে জাতির মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর সাহস পেয়েছে।


বাঙ্গালি জাতিকে এমন দিক-দর্শন দিয়ে গেছেন, সে দিক-দর্শনের দিকে তাকিয়ে বাঙ্গালি জাতি এখন এগিয়ে চলেছে।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে আদর্শ রেখে গেছেন তা আমাদের অনুসরণ করতে হবে।


জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশের পররাষ্ট্র নীতি প্রণয়নে যে অসাধারণ দূরদৃষ্টি ও সাহসীকতা প্রদর্শন করেন তা বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করে। ১৯৭৫ ইংরেজি সালের ১৫ আগষ্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করলেও তার আদর্শকে হত্যা করতে পারেনি কুচক্রীরা। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে সামনে রেখে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ দেশের ব্যাপক উন্নয়ন ঘটিয়ে মধ্য আয়ের দেশে রূপান্তরিত করেছেন এবং বহিঃবিশ্বে রোল মডেল হিসেবে পরিচিতি করে তুলেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Read all news in this category

ads service ads service ads service
ADVERTISEMENT
Categories
Prayer Time
  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৫:১০
  • ১১:৫৩
  • ১৫:৩৫
  • ১৭:১৪
  • ১৮:৩৩
  • ৬:২৭
sraewra4a
Share on facebook
Facebook
Share on whatsapp
WhatsApp
Share on reddit
Reddit
Share on email
Email
Share on telegram
Telegram

What Is Copyright Law?.

DMCA COPYRIGHT CLAIM

বাংলাদেশ অতিরিক্ত সংখ্যা
কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রকাশিত

বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ ঢাকা, ১৮ই জুলাই, ২০০০/৩রা শ্রাবণ, ১৪০৭

সংসদ কর্তৃক গৃহীত নিম্নলিখিত আইনটি ১৮ই জুলাই, ২০০০ (রা শ্রাবণ, ১৪০৭) তারিখে রাষ্ট্রপতির সম্মতি
লাভ করিয়াছে এবং এতদ্বারা এই আইনটি সর্বসাধারণের অবগতির জন্য প্রকাশ করা যাইতেছে.

২০০০ সনের ২৮ নং আইন
কপিরাইট আইন সংশোধন ও সংহতকরণকল্পে প্রণীত আইন
যেহেতু কপিরাইট বিষয়ে প্রচলিত আইনের সংশোধন ও সংহতকরণ সমীচীন ও প্রয়োজনীয় সেহেতু এতদ্বারা

১। সংক্ষিপ্ত শিরোনামা, প্রয়োগ এবং প্রবর্তন ।-(১) এই আইন কপিরাইট আইন, ২০০০ নামে অভিহিত হইবে |
(২) ইহা সমগ্র বাংলাদেশে প্রযোজ্য হইবে ।
(৩) সরকার, সরকারী গেজেটে প্রজ্ঞাপন দ্বারা, যে তারিখ নির্ধারণ করিবে, সেই তারিখে ইহা কার্যকর হইবে ।

২। সংজ্ঞা ।- বিষয় বা প্রসংগের পরিপন্থী কিছু না থাকিলে, এই আইনে –

৯১) “অনুলিপি” অর্থ বর্ণ, চিত্র, শব্দ বা অন্য কোন মাধ্যম ব্যবহার করিয়া লিখিত, শব্দ রেকর্ডি, চলচ্চিত্র,
গ্রাফিক্স চিত্র বা অন্য কোন বস্তুগত প্রকৃতি বা ডিজিটাল সংকেত আকারে পুনরুৎপাদন (স্থির বা
চলমান), দ্বিমাত্রিক, ত্রিমাত্রিক বা পরাবাস্তব নির্বিশেষেঃ

২২) “অনুলিপিকারী যন্ত্র” অর্থ কোন যন্ত্র বা যান্ত্রিক কৌশল বা পদ্ধতি যাহা কোন কর্মের যে কোন ধরণের
অনুলিপি তৈরী বা পুনরুৎপাদনের জন্য ব্যবহৃত হয় বা হইতে পারে;

(৩) “অভিযোজন” অর্থ-
(ক) নাট্য কর্মের ক্ষেত্রে কর্মটিকে অ-নাট্য কর্মে রুপান্তরঃ
(খ) সাহিত্য বা শিল্পকর্মের ক্ষেত্রে, অভিনয় বা অন্য কোন উপায়ে জনসমক্ষে রুপান্তর ;

১ কপিরাইট সংশোধন) আইন, ২০০৫ দারা ধারা ২ এর দফা (১) প্রতিস্থাপিত ।
২ কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ দ্বারা ধারা ২ এর দফা (২) প্রতিস্থাপিত |

(গ) সাহিত্য বা নাট্যকর্মের ক্ষেত্রে, কর্মের সংক্ষেপকরণ বা কর্মটির এমন অনুবাদ যাহাতে উক্ত কর্মের
বিষয় বা প্রভাব সম্পূর্ণরূপে বা প্রধানতঃ পুস্তক, সংবাদপত্র, পত্রিকা, ম্যাগাজিন বা সাময়িকীতে
পুনঃপ্রকাশের জন্য যথাযথ ছবির মাধ্যমে প্রকাশ করা;

(ঘ) সংগীত কর্মের ক্ষেত্রে, উহার যে কোন বিন্যাস বা নকল;

(ড) অন্য কোন কর্মের ক্ষেত্রে, সংশিষ্ট কর্মের পুনর্বিন্যাস বা পরিবর্তনক্রমে ব্যবহার ।

(8) “আলোক চিত্রানুলিপি” অর্থ কোন কর্মের ফটোকপি বা অনুরুপ অন্য মাধ্যমে প্রণীত অনুলিপি;

(৫) “একচেটিয়া লাইসেন্স” অর্থ এমন লাইসেন্স যা দ্বারা অন্য সকল ব্যক্তি বাদে কেবলমাত্র লাইসেন্স প্রাপক
বা লাইসেন্স প্রাপক হইতে ক্ষমতা প্রাপ্ত ব্যক্তির অনুকূলে কপিরাইট স্বত্ব অর্পিত হয় এবং একচেটিয়া
লাইসেন্স প্রাপক তদানুসারে ব্যাখ্যাত হইবে;

(৬) “কপিরাইট” অর্থ এই আইনের অধীন কপিরাইট;

(৭) “কপিরাইট সমিতি” অর্থ এই আইনের ধারা ৪১ এর উপধারা (৩) এর অধীন নিবন্ধকৃত কোন সমিতিঃ

(৮) “কপিরাইট লঙ্ঘনকারী অনুলিপি” অর্থ-

(ক) সাহিত্য, নাট্য, সংগীত বা শিল্পকর্মের ক্ষেত্রে, চলচ্চিত্র ছবি ব্যতীত অন্য কোনভাবে সমগ্র কর্ম বা
উহার অংশ বিশেষের পুনরুৎপাদন;

সখ) চলচ্চিত্র বা ফটোগ্রাফের ক্ষেত্রে, উক্ত কর্মটির সম্পূর্ণ বা অংশবিশেষ ইলোক্ট্রো ম্যাগনেটিক যন্ত্র বা
অন্য যেকোন যন্ত্র বা পন্থায় প্রণীত বা প্রদর্শিত হোক না কেন;

(গ) শব্দ রেকর্ডিং এর ক্ষেত্রে, যেকোন মাধ্যমে অভিন্ন শব্দ রেকর্ড ধারণকারী অন্য যেকোন রেকর্ডঃ

(ঘ) এই আইনের অধীন সম্প্রচার পুনরুৎপাদন অথবা সম্পাদনকারীর অধিকার বিষয়ক কোন প্রোগ্রামের
ক্ষেত্রে, এই আইনের কোন বিধান লঙ্ঘনক্রমে সংশিষ্ট প্রোগ্রামের পূর্ণ বা আংশিক চলচ্চিত্র ছবি বা
শব্দ রেকর্ড করা বা তৈরী বা আমদানী করা;

*(ড) কম্পিউটার প্রোগ্রামের ক্ষেত্রে কোন কম্পিউটার প্রোগ্রামের সম্পূর্ণ বা অংশবিশেষের পুনরুৎপাদন বা
ব্যবহারঃ

(৯) “কম্পিউটার” অর্থে মেকানিক্যাল, ইলেক্ট্রোম্যাকানিক্যাল, ইলেক্ট্রনিক, ম্যাগনেটিক, ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক
ডিজিটাল বা অপটিক্যাল বা অন্য কোন পদ্ধতির ইমপালস ব্যবহার করিয়া লজিক্যাল বা গাণিতিক
যেকোন একটি বা সকল কাজ কর্ম সম্পাদন করে এমন যেকোন তথ্য প্রক্রিয়াকরণ যন্ত্র বা সিস্টেম
অন্তর্ভূক্ত হইবে;
(১০) “কম্পিউটার প্রোগ্রাম” অর্থ পাঠযোগ্য মাধ্যমে যন্ত্রসহ শব্দ, সংকেত, পরিলেখ অথবা অন্য কোন আকারে
প্রকাশিত নির্দেশাবলী, যা দ্বারা কম্পিউটারকে কোন বিশেষ কাজ করানো বা বাস্তবে ফলদায়ক করানো
যায়;
(১১) “কর্ম” অর্থ নিম্নলিখিত যে কোন কর্ম, যথাঃ-
(ক) সাহিত্য, নাট্য, সংগীত বা শিল্পকর্ম;
(খ) চলচ্চিত্র ছবিঃ
(গ) শব্দ রেকর্ডিং এবং
(ঘ) সম্প্রচার ।

 

ও কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ ছারা ধারা ২ এর দফা (৮) এর উপ-দা (৭) প্রতিস্থাপিত ।
» কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ দ্বারা ধারা ২ এর দফা (৮) এর নৃতন উপ-দফা (ড) সংযোজিত ।
« কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ ছারা ধারা ২ এর দফা (৯) প্রতিস্থাপিত ।

(১২) “খোদাই” অর্থে কাচ, পাথর বা কাঠের খোদাই কর্ম, ছাপ এবং ফটোগ্রাফ ব্যতীত অনুরুপ অন্যান্য

কর্ম অন্তর্ভূক্ত হইবে;

(১৩) বিলুপ্ত

১৩ক) “গ্স্থাগার” অর্থ বিনামূল্যে ব্যবহারযোগ্য এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সাথে সংশিষ্ট গ্রন্থাগার যাহা
অলাভজনক ভিত্তিতে পরিচালিত হয়ঃ

(১৪) “চলচ্চিত্র ছবি বা চলচ্চিত্র” অর্থ যে কোন মাধ্যমে অবধারিত দৃষ্টিগাহ্য প্রতিচ্ছবিসমূহের অনুক্রম যাহা
হইতে চলমান ছবি তৈরী করা যায় এবং যাহা শব্দ রেকর্ভ সহযোগে দৃষ্টিগরাহ্য রেকর্ড অন্তর্ভূক্ত করে এবং
“চলচ্চিত্র” বলিতে ভিডিও ছবিসহ ক্যাসেট, ভিডিও সি,ডি, এল,ডি, ইন্টারনেট, ক্যাবল নেট-ওয়ার্কস
এবং ভবিষ্যতে চলচ্চিত্রের অনুরুপ কোন মাধ্যমে তৈরী করা যায় এমন কর্মকে বুঝাইবে;

(১৫) “জনসাধারণের সহিত যোগাযোগ” অর্থ যেকোন কর্মের অনুলিপি সরবরাহ না করিয়া উক্ত কর্ম
জনসাধারণের দেখা, শোনা বা অন্যভাবে তার ও বেতারের মাধ্যমে প্রত্যক্ষ উপভোগের সুযোগ করা বা
যেকোন প্রকারের প্রদর্শনী বা প্রচারণার মাধ্যমে অনুরুপ সুযোগ সৃষ্টি করা, জনসাধারণের মধ্যে কেহ
অনুরূপভাবে কর্মটি প্রকৃতই উপভোগ করুক বা নাই করুক;

“ব্যাখ্যা ।- এই দফার উদ্দেশ্য পূরণকল্পে, কৃত্রিম উপগ্রহ (581611106), তার (০019) অথবা অন্য কোন
যুগপৎ মাধ্যমে একই সাথে একের অধিক গৃহ বা বাসস্থান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, অফিস, ক্লাব, কমিউনিটি
সেন্টার, আবাসিক হোটেল অথবা হোটেলের একাধিক কক্ষের সহিত একই সঙ্গে যোগাযোগকে
“জনসাধারণের সহিত যোগাযোগ” বুঝাইবে;

৮(১৫ক) “জাতীয় গ্রন্থাগার” অর্থ সরকার কর্তৃক স্থাপিত বা স্বীকৃত বাংলাদেশের জাতীয় গ্রন্থাগার;

৯(১৫খ) “দ-বিধি” অর্থ 019 [99178] ০০০০, 1860 (0.৬ 91860);

(১৬) “দালান” অর্থে কোন ইমারত অন্তর্ভুক্ত হইবে;

+(১৬ক) “দেওয়ানী কার্যবিধি” অর্থ 09 ০90০ 91 ০1৬1] [19০০901০, 1908 (৬ 91908);

(১৭) “নির্ধারিত” অর্থ এই আইনের অধীন প্রণীত বিধিমালা দ্বারা নির্ধারিত;

৯১৮) “নাট্যকর্ম” অর্থে আবৃত্তির অংশ বিশেষ, সমবেত প্রদর্শনী বা নির্বাক প্রদর্শনীর মাধ্যমে বিনোদন,
দৃশ্য-বিন্যাস বা লেখনী বা অন্যভাবে গ্রথিত অভিনয়ের আঙ্গিক অন্তর্ভূক্ত হইবে, কিন্তু কোন চলচ্চিত্র ছবি
অন্তর্ভুক্ত হইবে নাঃ

(১৯) “পঞ্জিকা-বর্ষ” অর্থ ১লা জানুয়ারি হইতে শুরু হয় এমন বর্ষ;

৯২০) “পাচলিপি” অর্থ হস্তলিখিত, যাত্রিক বা ডিজিটাল বা অন্য কোন পদ্ধতিতে প্রস্তুতকৃত কর্মের আদি
দলিল এবং কর্মের পরিকল্পনা, নকশা, ডিজাইন, লেআউট, টোকা, সংকেতও উহার অন্ত্ক্ত হইবে;

কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ ছারা ধারা ২ এর নৃততন দফা (১৩ক) সংযোজিত ।
কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ ছারা ধারা ২ এর দফা (১৫) এর ব্যখ্যা প্রতিস্থাপিত |

*কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ দ্বারা ধারা ২ এর নূতন দফা (১৫ক) সংযোজিত |

*কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ ছারা ধারা ২ এর নৃতন দফা (১৫খ) সংযোজিত ।

কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ ঘারা ধারা ২ এর নৃতন দফা (১৬ক) সংযোজিত ।

৯ কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ ছারা ধারা ২ এর দফা (১৮) তে “ঘোথিত” শব্দের পরিবর্তে “গরথিত” শব্দ প্রতিস্থাপিত |
৯ কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ দারা ধারা ২ এর দফা (২০) প্রতিস্থাপিত ।

(২১) “পুনঃসম্প্রচার” অর্থ কোন সম্প্রচার কর্তৃপক্ষের দ্বারা বাংলাদেশ বা অন্য দেশের কোন সম্প্রচার
কর্তৃপক্ষের অনুষ্ঠান যুগপৎ বা পরবর্তীতে সম্প্রচার এবং তারের মাধ্যমে এরুপ অনুষ্ঠান বিতরণ অন্তর্ভূক্ত হইবে
এবং তদনুসারে পুনঃসম্প্রচার ব্যাখ্যা করা হইবেঃ

(২২) “পুস্তক” অর্থে যে কোন ভাষার প্রত্যেক খন্ড, খন্ডের অংশ বা ভাগ এবং পুস্তিকা এবং পুস্তিকা এবং
আলাদাভাবে মুদ্রিত বা প্রস্তরে অঙ্কিত সংগীতের প্রত্যেক শীট, মানচিত্র, চার্ট বঢা নকশা অন্তর্ভূক্ত, কিন্তু কোন
সংবাদপত্র অন্তর্ভূক্ত হইবে নাঃ
(২৩) “প্রেট” অর্থে যে কোন মুদ্রণফলক বা অন্যরকম প্রেট, রক, ছাঁচে তৈরী পুডিং, ছাচ, এক মাধ্যম হইতে
অন্য মাধ্যমে স্থানান্তর, নেগেটিভ, টেপ, তার, অপটিক্যাল ফিল বা অন্যরকম কৌশল যাহা কোন কর্মের মুদ্রণ
বা পুনযুদ্রণের জন্য ব্যবহৃত হয়ে অথবা ব্যবহারের অভিপ্রায় করা হয়, এবং যে কোন ছাঁচ বা অন্যরকম
যন্ত্রপাতি যাহার দ্বারা শিল্পকর্মটির শ্রুতিবোধ সম্বন্ধীয় উপস্থাপনার জন্য রেকর্ড তৈরী করা হয় বা উহার অভিপ্রায়
করা অন্তর্ভূক্ত হইবে?

(২৪) “প্রণেতা” অর্থ-

১১ (ক) সাহিত্য বা নাট্যকর্মের ক্ষেত্রে, কর্মটির গ্রন্থকার;

(খ) সংগীত বিষয়ক কর্মের ক্ষেত্রে, উহার সুরকার বা রচয়িতা;

(গ) ফটোগ্রাফ ব্যতীত অন্য কোন শিল্পসুলভ কর্মের ক্ষেত্রে, উহার নির্মাতা;

(ঘ) ফটোগ্রাফের ক্ষেত্রে, উহার চিত্রগ্রাহক;

(উ) চলচ্চিত্র অথবা শব্দ রেকর্ডিং এর ক্ষেত্রে, উহার প্রযোজক;

৯* চে) কম্পিউটার মাধ্যমে সৃষ্ট সাহিত্য, নাট্য, সংগীত বা শিল্প সুলভ কর্মের ক্ষেত্রে, কর্মটির সৃষ্টিকারী
ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান;

(২৫) প্রযোজক” অর্থে চলচ্চিত্র ছবি অথবা শব্দ রেকর্ডিং এর ক্ষেত্রে, সেই ব্যক্তিকে বুঝাইবে যিনি কর্মটির
বিষয়ে উদ্যোগ, বিনিয়গ এবং দায়িত্ব পালন করিবেন;

(২৬) “ফটোগ্রাফ” অর্থে ফটো লিখোগ্রাফ এবং ফটোগ্রাফি সদৃশ কোন প্রক্রিয়ায় প্রস্তুত যে কোন কর্ম অন্তর্ভূক্ত
হইবে; কিন্তু চলচ্চিত্র ছবির কোন অংশ অন্তর্ভুক্ত হইবে নাঃ
১৫(২৬ক) “ফৌজদারী কার্যবিধি” অর্থ 076 ০০৫০ ০1 0100179] [109০90016, 1898 (৬ 911898);
(২৭) “বাংলাদেশী কর্ম” অর্থ এমন; সাহিত্য, নাট্য, সংগীত বা শিল্প কর্ম-

(ক) যাহার প্রণেতা বাংলাদেশের নাগরিক; বা
(খ) যাহা প্রথম বাংলাদেশে প্রকাশিত হইয়াছে; বা
(গ) অপ্রকাশিত কর্মের ক্ষেত্রে, যাহার প্রণেতা উহা তৈরীর সময় বাংলাদেশের নাগরিক ছিলেন;
(২৮) “বোর্ড” অর্থ এই আইনের ধারা ১১ এর উপ-ধারা (১) এর অধীন গঠিত কপিরাইট বোর্ড;
(২৯) “ভাক্কর্য কর্ম” অর্থে ছাচে ঢালা বস্তু এবং মডেল অন্তর্ভূক্ত হইবে;
৯৯৩০) “যৌথ গ্রন্থকার কর্ম” অর্থ দুই বা ততোধিক গ্রন্থকারের সহযোগিতায় প্রণীত কর্ম, যাহাতে একজন
গরন্থকারের অবদান অপর গ্রন্থকারের অবদান হইতে স্বতন্ত্র নহেঃ
(৩১) “রচয়িতা” অর্থ, কোন সংগীতের ক্ষেত্রে, উহার গীতিকার, উহা স্বরলিপির মাধ্যমে রেকর্ভকৃত হউক বা না
হোকঃ

 

১ কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ দ্বারা ধারা ২ এর দফা (২৪) এর উপ-দফা (ক) তে “রস্থাকার”শন্দের পরিবর্তে ‘খস্থকার” শব্দ প্রতিস্থাপিত ৷
৯ কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ দ্বারা ধারা ২ এর দফা (২৪) এর উপ-দফা (চ) তে “ব্যক্তি” শব্দের পর “বা প্রতিষ্ঠান” শব্দগুলি সংযোজিত |
এ কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ ছারা দারা ২ এর নৃতন দফা (২৬ক) সনিবেশিত।

৯৯ কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ দ্বারা ধারা ২ এর দফা (৩০) প্রতিস্থাপিত ৷

(৩২) “রেজিষ্ত্রার” অর্থ এই আইনের ধারা ১০ এর উপ-ধারা (১) এর অধীনে নিযুক্ত কপিরাইট রেজিস্ট্রার
এবং রেজিস্ট্রারের কার্য সম্পাদনকারী ডেপুটি রেজিস্ট্রারও অন্তর্ভূক্ত হইবেন;

(৩৩) বিলুপ্ত

(৩৪) “লেকচার” অর্থে ভাষণ, বক্তৃতা ও ধমোঁপদেশ অন্তর্ভুক্ত হইবে;

(৩৫) “শব্দ রেকর্ডিং” অর্থ রেকর্ড করার মাধ্যমে ও পদ্ধতি নির্বিশেষে, শব্দের এমন প্রক্রিয়ায় রেকর্ডিং করা
যাহা হইতে উক্ত শব্দ উৎপাদন করা যায়ঃ

(৩৬) “শিল্প কর্ম” অর্থ_
(ক) শিল্পসুলভ গুণ থাকুক বা না থাকুক, চিত্রকর্ম, ভাক্কর্ষ, ড্রয়িং (রেখাচিত্র, মানচিত্র, চার্ট, নক্শাসহ),
খোদাই বা ফটোগ্রাফ;
(খ) স্থাপত্য শিল্পকর্ম; এবং
(গ) শিল্পসুলভ কারিকর সমৃদ্ধ অন্য কোন কর্ম;

(৩৭) “সংগীত কর্ম” অর্থ সুর সম্বলিত কর্ম এবং উক্ত কর্মেও স্বরলিরি পদ্ধতি অন্তর্ভুক্ত হইবে কিন্তু কোন কথা
বা কাজকে গানের মাধ্যমে প্রকাশ বা সম্পাদন করা অন্তর্ভুক্ত হইবে নাঃ

(৩৮) “সংস্থাপন” অর্থ শ্ব্দ বা প্রতিচ্ছবি বা উভয়ের সংযোগকারী এমন কৌশল যাহা পরবর্তীতে শ্রবণ বা
দৃষ্টিতে বোধগম্য করা যায়ঃ

(৩৯) “সরকার” অর্থ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার;

(৪০) “সরকারী কর্ম” অর্থ নিষ্নবর্ণিত কোন কর্তৃপক্ষের দ্বারা বা অধীন প্রদত্ত কোন আদেশ, নির্দেশ বা নিয়ন্ত্রণে

সম্পাদিত বা জারীকৃত কর্ম ৪
(ক) সরকার বা সরকারের কোন বিভাগ;

(খ) বাংলাদেশের আইন প্রণয়নকারী কর্তৃপক্ষ
(গ) বাংলাদেশের কোন আদালত, ট্রাইবুন্যাল বা অন্য কোন বিচার বিভাগীয় কর্তৃপক্ষঃ

(৪১) “সম্পাদন” অর্থ, সম্পাদনকারীর অধিকারের ক্ষেত্রে, এক বা একাধিক সম্পাদনকারী কর্তৃক দর্শনসাধ্য বা
শ্রবণযোগ্য জীবন্ত উপস্থাপন?

(৪২) “সম্পাদনকারী” অর্থ অভিনেতা, গায়ক, বাদ্যযন্ত্র, নৃত্যকারী, দড়াবাজকর, ভোজবাজিকর, জাদুকর,
সাপুড়ে, লেকচারদাতা অথবা কিছু সম্পাদন করেন এমন যে কোন ব্যাক্তি অন্তর্ভূক্ত হইবে;

১৪৩) “সম্প্রচার” অর্থ এক বা একাধিক রকমের সংকেত, চিহ্‌, শব্দ, ইন্টারনেট সংযুক্ত কম্পিউটার,
টেলিভিশন ও বেতার যন্ত্রসহ উপগ্রহ, তার বা বেতার যন্ত্র অথবা অন্য কোন পদ্ধতির যে কোন মাধ্যমে
জনসাধারণের সহিত যোগাযোগ এবং পুনঃসম্প্রচারও উহার অন্তর্ভূক্ত হইবে;

(88) “সম্প্রচার কর্তৃপক্ষ” অর্থ এমন কোন ব্যক্তি বা কর্তৃপক্ষ, যিনি বা ক্ষেত্রমত, যাহার দ্বারা কোন

কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ হারা ধারা ২ এর লফণ (৪৩) প্রতিহ্াপিত।

(৪৫) “সরবরাহ” অর্থ কোন বক্তৃতায় ক্ষেত্রে, যান্ত্রিক বা বেতার যন্ত্রের মাধ্যমে সম্প্রচার অন্তর্ভূক্ত হইবে;

৯ (৪৬) “সাহিত্যকর্ম” অর্থে জনসাধারণের পঠন-পাঠন ও শ্রবণের উদ্দেশ্যে মানবিক, ধর্মীয়, সামাজিক,
বৈজ্ঞানিক ও অন্য কোন বিষয়ে রচিত, গ্রন্থিত, অনুদিত, রূপান্তরিত, অভিযোজিত, সৃষ্টিশীল,
গবেষণামূলক, তথ্যমূলক যে কোন কর্ম এবং কম্পিউটার সৃষ্ট সৃজনশীল কর্মসহ কম্পিউটার পোগ্ামও
উহার অন্তর্ভুক্ত হইবে;

(৪৭) “স্থাপত্য কর্ম” অর্থ শৈল্পিক চরিত্র অথবা ডিজাইনকৃত কোন দালান বা ইমারত অথবা এরূপ দালান বা
ইমারতের কোন মডেল;

৯(৪৮) “ফিল্ম আর্কাইভ” অর্থ সরকার কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভ ।

৩ প্রকাশনার অর্থ ।- এই আইনের উদ্দেশ্য পূরণকল্পে “প্রকাশনা” অর্থ কোন কর্মের অনুলিপি জনগণের
নিকট সরবরাহ করার অথবা পৌছানোর ব্যবস্থা করা;

তবে শর্ত থাকে যে, এই আইনে ভিন্নরূপ কিছু না থাকিলে প্রকাশনা অর্থে নিশ্নবর্ণিত কার্য অন্তর্ভূক্ত হইবে
না, যথা ৪

(ক) নাট্যকর্ম, নাট্যসংগীত, চলচ্চিত্র বা সঙ্গীত কর্মঃ

(খ) জনসমক্ষে সাহিত্য কর্মের আবৃত্তি,

২০(গ) তার, বেতার বা অন্য যেকোন মাধ্যমে যোগাযোগ, সাহিত্য বা শিল্পকর্মের সম্প্রচারঃ

(ঘ) শিল্পকর্মের প্রদর্শনী;

(উ) স্থাপত্য শিল্পের নিম ।

8 । কর্ম প্রকাশিত বা প্রকাশ্যে সম্পীদনকৃত বলিয়া গণ্য না হওয়া ।_ বিনা লাইসেন্সে বা কপিরাইট
স্বত্বাধিকারীর অনুমতি ব্যতিরেকে কোন কর্ম প্রকাশিত, প্রকাশ্যে সম্পাদনকৃত বা কোন লেকচার জনসমক্ষে প্রদত্ত
হইলেও,কপিরাইট লংঘনের উদ্দেশ্য ব্যতীত, উক্ত প্রকাশিত বা প্রকাশ্যে সম্পাদনকৃত বলিয়া গণ্য হইবে না এবং
কোন লেকচার জনসমক্ষে প্রদত্ত হইয়াছে বলিয়া গণ্য হইবে না ।

২৫ । বাংলাদেশে প্রথম প্রকাশিত বলিয়া গণ্য কর্ম।- এই আইনের উদ্দেশ্য পূরণকল্পে, বাংলাদেশে
প্রকাশিত কোন কর্ম অন্য কোন দেশে যুগপতভাবে প্রকাশিত হওয়া সত্তেও বাংলাদেশে প্রথম প্রকাশিত হইয়াছে
বলিয়া গণ্য হইবে, যদি না উক্ত কর্ম দেশ উক্তরূপ কর্মের কপিরাইট সংক্ষিপ্ততর মেয়াদের জন্য প্রদান করার
বিধান করে; এবং কোন কর্ম বাংলাদেশ এবং অপর কোন দেশে যুগপৎভাবে প্রকাশিত বলিয়া গণ্য হইবে যদি
বাংলাদেশে এবং অপর দেশে প্রকাশকালের মধ্যে ব্যবধান ত্রিশ দিন অথবা সংশিষ্ট পক্ষগণের মধ্যে সম্পাদিত
প্রকাশনা সংক্রান্ত চুক্তিতে নির্ধারিত সময়সীমা, যাহা পূর্বে সংঘটিত হয়, অথবা সরকার কর্তৃক, দেশ বিশেষের জন্য
এতদউদ্দেশ্যে নির্ধারিত সময়সীমা, অতিক্রান্ত না হয় ।

৬ । কতিপয় বিরোধ বোর্ড কর্তৃক নিষ্পত্তিতব্য ।- কোন কর্ম প্রকাশিত হইয়াছে কিনা অথবা পঞ্চম
অধ্যায়ের উদ্দেশ্য পূরণকল্পে কর্মটির প্রকাশনার তারিখ সম্পর্কে, বা অন্য কোন দেশে কোন কর্মের কপিরাইটের
মেয়াদ এই আইনের অধীন উক্ত কর্মের কপিরাইটের মেয়াদ হইতে সংক্ষিপ্ততর কিনা সেই সম্পর্কে, কোন বিরোধ
দেখা দিলে বিরোধটি বোর্ডে প্রেরণ করা হইবে এবং উক্ত বিষয়ে বোর্ডের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হইবে 8

তবে শর্ত থাকে যে, যদি বোর্ড এই মর্মে সন্তুষ্ট হয় যে, জনগণের নিকট ইস্যুকৃত অনুলিপি বা ধারা ৩-এ
উল্লিখিত জনগণের সহিত যোগাযোগ নগণ্য ধরনের, তাহা হইলে উহা ধারার অধীন প্রকাশনা হিসাবে গণ্য হইবে
না।

 

৯ কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ দারা ধারা ২ এর দফা (৪৬) প্রতিস্থাপিত ।

৯ কপিরাইট (সংশোধন) আইন. ২০০৫ দারা ধারা ২ এর দফা (৪৮) সংযোজিত ।

২ কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ দ্বারা ধারা ৩ এর শতাংশে “তারের মাধ্যমে” শব্দগুলি পরিবর্তে “তার, বেতার বা অন্য যে কোন মাধ্যমে” শব্দগুলি ও কমা সন্নিবেশিত ।

৯ কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ ছারা ধারা ৫ এর “ ত্রিশ দিন অথবা” শব্দগুলি ও কমার পরিবর্তে “ত্রিশ দিন অথবা সংশ্লিষ্ট পক্ষগণের মধ্যে সম্পাদিত প্রকাশনা সংক্রান্ত চুক্তিতে নির্ধারিত
সময়সীমা, মা হা পূর্বে সংঘটিত হয়, অথবা” শব্দগুলি ও কমাগুল প্রতিস্থাপিত |

২৭। অপ্রকাশিত কর্মের সময়সীমা পর্যাপ্ত হওয়ার ক্ষেত্রে গ্রস্থকারের জাতীয়তা ।- কোন
অপ্রকাশিত কর্মের ক্ষেত্রে, কর্ম সম্পাদনের সময়সীমা পর্যাপ্ত হইলে উহার গ্রন্থকার, এই আইনের উদ্দেশ্য
পুরণকল্পে, এ দেশের নাগরিক বা স্থায়ী বাসিন্দা বলিয়া গণ্য হইবেন যে দেশে তিনি উক্ত পর্যাপ্ত সময়ের অধিকাংশ
সময়কালের নাগরিক বা স্থায়ী বাসিন্দা, বা যে দেশের তিনি বর্তমান নাগরিক, বা মৃত্যুর পূর্বে যে দেশের
নাগরিক, ছিলেন ।

৮। সংবিধিবদ্ধ সংস্থা বা স্থায়ী আবাস ।- কোন সংবিধিবদ্ধ সংস্থা, এই আইনের উদ্দেশ্য পূুরণকক্পে,
বাংলাদেশের সংস্থা বলিয়া গণ্য হইবে যদি উক্ত সংস্থা বাংলাদেশের প্রচলিত কোন আইনের অধীন প্রতিষ্ঠিত হয়
অথবা উহার কোন ব্যবহারিক অফিস বা স্থান বাংলাদেশে থাকে ।

অধ্যায়-২
কপিরাইট অফিস, রেজিস্ট্রার অব কপিরাইট এবং কপিরাইট বোর্ড

৯ । কপিরাইট অফিস ।- (১) এই আইনের উদ্দেশ্য পূরণকল্পে কপিরাইট অফিস নামে একটি অফিস
স্থাপিত হইবে ।

(২) কপিরাইট অফিস কপিরাইটের রেজিস্ট্রারের প্রত্যক্ষ নিয়ন্ত্রণাধীন থাকিবে এবং কপিরাইট রেজিস্ট্রার
সরকারের তন্বীবধান ও নির্দেশ সাপেক্ষে তাহার দায়িত্ব পালন করিবেন ।

(৩) কপিরাইট অফিসের একটি সীলমোহর থাকিবে যাহার ছাপ বিচার বিভাগীয় অবগতির অন্তর্ভূক্ত
হইবে ।

১০ । কপিরাইট রেজিস্ট্রার ও ডেপুটি রেজিস্ট্রার ।_ (১) সরকার, এই আইনের উদ্দেশ্য পূরণকল্পে,
একজন কপিরাইট রেজিস্ট্রার নিয়োগ করিবেন এবং সরকার কর্তৃক নির্ধারিত সংখ্যক কপিরাইট ডেপুটিরেজিস্ট্রার
নিয়োগ করিতে পারিবে ।

(২) রেজিস্ট্রার-

২৩(ক) এই আইনের অধীনে রক্ষিত কপিরাইট রেজিস্টারের সকল এন্টিতে স্বাক্ষর করিবেন;

(খ) কপিরাইট অফিসের সীলমোহর দ্বারা কপিরাইটের সকল নিবন্ধন সনদপত্র মোহরাফ্কিত করিবেন ও

(গ) এই আইন দ্বারা বা উহার অধীনে তাহার উপর প্রদত্ত সকল ক্ষমতা প্রয়োগ এবং দায়িত্ব পালন
করিবেন;

(ঘ) বিধি দ্বারা নির্ধারিত অন্যান্য কার্যবিলী সম্পাদন করিবেন ।

(৩) কপিরাইট ডেপুটি রেজিস্ট্রার, রেজিস্ট্রারের তত্্বীবধান ও নির্দেশ সাপেক্ষে, এই আইনের অধীন
রেজিস্ট্রারের এ সকল দায়িত্ব, সম্পাদন করিবেন যাহা রেজিস্ট্রার, সময় সময়, তাঁহাকে অর্পণ করিবেন; এবং এই
আইনে “রেজিস্ট্রার” অর্থে ডেপুটি রেজিস্ট্রারও অন্তর্ভূক্ত হইবে ।

১১ । কপিরাইট বোর্ড ।- (১) সরকার, এই আইন কার্যকর হওয়ার পর যত শীঘ্ব সম্ভব, কপিরাইট বোর্ড
নামে একটি বোর্ড গঠন করিবে, যাহা একজন চেয়ারম্যান ও অন্যুন দুইজন কিন্তু অনধিক ছয় জন সদস্য সমন্বয়ে
গঠিত হইবে ।

 

৯ কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ দারা ধারা ৭ এর “বা থা বাসিন্দা ছিলেন” শঙ্পুলি ও কমার পরিবর্তে “বা ছয় বালল্দা বা যে দেশের তিনি বর্তমান নাগরিক, বা ৃত্যর পূর্বে যে দেশের
নাগৰিক, ছিলেন” শব্দগুলি ও কমাগুলি প্রতিস্থাপিত ।

২ কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ ঘারা ধারা ১০ এর উপ-ধারা (২) এর দফা (ক) এর “কপিরাইট রেজিজ্্রারের” শবদগুলির পরিবর্তে “কপিরাইট রেজিস্টারের” শব্দগুলি প্রতিস্থাপিত ।
(২) চেয়ারম্যান ও সদস্যগণ সরকার কর্তৃক নিযুক্ত হইবেন ।
(৩) বোর্ডের চেয়ারম্যান ও অন্যান্য সদস্য বিধি দ্বারা নির্ধারিত মেয়াদ ও শর্তাধীনে স্বীয় পদে বহাল
থাকিবেন।
(8) সিলেকশন গ্রেড, প্রাপ্ত জেলাজজ ছিলেন বা আছেন বা সরকারের অতিরিক্ত সচিব পদমর্যাদার
একজন কর্মকর্তা বা হাইকোর্টের বিচারপতি হইবার উপযুক্ত একজন আইনজীবী চেয়ারম্যান নিযুক্ত হইবেন ।
(৫) রেজিস্ট্রার বোর্ডের সচিব হইবেন এবং নির্ধারিত দায়িত্ব পালন করিবেন ।

১২ । বোর্ডের ক্ষমতা ও কার্যপদ্ধতি ।- (১) বোর্ড, এই আইনের অধীন প্রণীত বিধি সাপেক্ষে, উহার
বৈঠকের স্থান ও সময় নির্ধারণসহ কার্ষপদ্ধতি নির্ধারণ করিতে পারিবে ।

(২) এই আইনের অধীন কোন বিষয়ে সিদ্ধান্তের ক্ষেত্রে সদস্যগণের মধ্যে মত-পার্থক্য হইলে,
সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের মতামত প্রাধান্য পাইবে 8

তবে শর্ত থাকে যে, ফেক্ষেত্রে সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকিবে না, সে ক্ষেত্রে চেয়ারম্যানের মতামত প্রাধান্য
পাইবে ।

(৩) বোর্ড ধারা ৯৯ এর অধীন কোন সদস্যের উপর উহার যে কোন ক্ষমতা প্রয়োগের জন্য অর্পণ করিতে
পারিবে এবং এইরূপ ক্ষমতাপ্রাপ্ত সদস্য কর্তৃক প্রদত্ত আদেশ বা কৃত কাজকর্ম বোর্ডের আদেশ বা কাজ হিসাবে
গণ্য হইবে ।

(8) শুধুমাত্র বোর্ডের কোন সদস্যপদ শুন্য রহিয়াছে বা বোর্ড গঠনে ক্রুটি রহিয়াছে শুধুমাত্র এই কারণে
বোর্ডের কোন কাজ বা কার্যধারা অবৈধ হইবে না বা উহার বৈধতা লইয়া প্রশ্ন কর যাইবে না।

২৫৫) ফৌজদারী কার্যবিধির ধারা ৪৮০ ও ৪৮২ এর উদ্দেশ্য পূরণকল্পে, বোর্ড একটি দেওয়ানী
আদালতরূপে গণ্য হহবে এবং ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বোর্ডের নিকট উপস্থাপিত সকল বিষয় দ-বিধির ধারা ১৯৩ ও
২২৮ এর অর্থে বিচার বিভাগীয় কার্যক্রম হিসাবে গণ্য হইবে ।

(৬) বোর্ডের কোন সদস্য বোর্ডের নিকট উ্থাপিত এমন কোন কার্ধারায় অংশগ্রহণ করিবেন না যাহাতে
তাঁহার ব্যক্তিগত স্বার্থ রহিয়াছে।

অধ্যায়-৩
কপিরাইট

১৩ । এই আইনের বিধান বহির্ভূত কপিরাইট থাকিবে না ।-এই আইন বা আপাততঃ বলবৎ অন্য
কোন আইনের বিধানের পরিপন্থী উপায়ে কোন ব্যক্তি কোন প্রকাশিত বা অপ্রকাশিত কর্মের কপিরাইট বা অনুরূপ
কোন স্বত্বের অধিকারী হইবেন না, কিন্তু এই ধারার কোন কিছু এমনভাবে ব্যাখ্যা করা যাইবে না যাহাতে কোন
বিশ্বাস বা আস্থা রোধ করিবার অধিকার রদ হইতে পারে ।

১৪ । কপিরাইটের অর্থ ।-এই আইনের উদ্দেশ্য পূরণকল্পে “কপিরাইট” অর্থ, এই আইনের বিধানাবলী
সাপেক্ষে, কোন কর্ম বা কর্মের গুরুতপূর্ণ অংশের বিষয়ে নিম্নবর্ণিত কোন কিছু করা বা করার ক্ষমতা অর্পণ,যথা ৪-

(১) কম্পিউটার প্রোগ্রাম ব্যতীত, সাহিত্য, নাট্য বা সংগীত কর্মের ক্ষেত্রে,

(ক) যে কোন উপায়ে ইলেকট্রনিক্স মাধ্যমে কর্মটি সংরক্ষণ করাসহ যে কোন বস্তগত আঙ্গিকে
কর্মটির পুনরুৎপাদন করা;

 

৯ কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ ছারা ধারা ১২ এর উপ-ধারা (৫) প্রতিস্থাপিত ।

(খ) সার্কুলেশনে রহিয়াছে এমন অনুলিপি ব্যতিরেকে, কর্মটির অনুলিপি জনগণের জন্য ইস্যু করাঃ

(গ) জনসমক্ষে কর্মটি সম্পাদন করা অথবা উহা জনগণের মধ্যে প্রচার করা;

(ঘ) কর্মটির কোন অনুবাদ উৎপাদন, পুনরুৎপাদন, সম্পাদন বা প্রকাশ করা;

() কর্মটির বিষয়ে কোন চলচ্চিত্র ছবি বা শব্দ রেকর্ড করাঃ

(চ) কর্মটি সম্প্রচার করা বা কর্মটির সম্প্রচারকৃত বিষয় মাইক বা অনুরূপ অন্য কোন যন্ত্রের সাহায্যে
জনসাধারণকে অবহিত করা;

(ছ) কর্মটি অভিযোজন করা;

(জ) কর্মটির অনুবাদ বা অভিযোজন বিষয়ে উপরের (ক) হইতে (চ)-এ উল্লিখিত কোন কাজ করা ।

(২) কম্পিউটার প্রোগ্রামের ক্ষেত্রে,_

(ক) দফা (১)-এ উল্লিখিত যে কোন কিছু করা;

(খ) ইতোপূর্বে একইরূপ অনুলিপি বিক্রয় করা বা ভাড়া প্রদান করা হউক বা না হউক, কম্পিউটার
প্রোগ্রামের অনুলিপি বিক্রয় বা ভাড়া প্রদান করা অথবা বিক্রয় বা ভাড়া প্রদান করিবার প্রস্তাব
করাঃ

(৩) শিল্পকর্মের ক্ষেত্রে,_

(ক) কোন দ্বিমাব্রিক কর্মের ত্রিমাত্রিক কর্মে অথবা ত্রিমাত্রিক কর্মের দ্বিমাত্রিক কর্মে অংকনসহ যে

কোন বস্তুগত আঙ্গিকে কর্মটি পুনরুৎপাদন করা;

(খ) কর্মটি জনগণের মধ্যে প্রচার করাঃ

(গ) সার্কুলেশনে রহিয়াছে এমন অনুলিপি ব্যতিরেকে, কর্মটির অনুলিপি জনগণের জন্য ইস্যু করা;
(ঘ) কর্মটিকে কোন চলচ্চিত্রের ছবির অন্তর্ভুক্ত করা;

() কর্মটির অভিযোজন করা;

() কর্মটির অভিযোজন বিষয়ে উপরের (ক) হইতে (ঘ)-এ উল্লিখিত কোন কিছু করা;
(ছ) কর্মটি সম্প্রচার করা বা কর্মটির সম্প্রচারকৃত বিষয় মাইক বা অনুরূপ অন্য কোন যন্ত্রের

সাহায্যে জনসাধারণকে অবহিত করা ।
২৫(৪) চলচ্চিত্র ফিল এর ক্ষেত্রে,_
(ক) কর্মটির অংশবিশেষের প্রতিবিষ্বের ফটোগ্রাফসহ ভিসিপি, ভিসিআর, ভিসিডি, ডিভিডি বা অন্য
কোনভাবে উহার অনুলিপি তৈরী করা;

(খ) ইতোপূর্বে একইরূপ অনুলিপি বিক্রয় বা ভাড়া প্রদান করা হউক বা না হউক, ভিসিপি,
ভিসিআর, ভিসিডি, ডিভিডি এর মাধ্যমে বা অন্য কোনভাবে ফিল্ম এর অনুলিপি বিক্রয় বা ভাড়া
প্রদান করা অথবা বিক্রয় বা ভাড়া প্রদান করার প্রস্তাব করাঃ

(গ) ফিল্ুটির ভিসিপি, ভিসিআর, ভিসিডি, ডিভিডি বা অন্য কোনভাবে উহার শ্রবণযোগ্য বা দৃষ্টিথাহ্য
অনুলিপি জনগণের মধ্যে প্রচার ও প্রদর্শন করা ।

(৫) শব্দ রেকর্ডিং এর ক্ষেত্রে,

(ক) অভিন্ন রেকর্ডিং অংগীভূত করিয়া অন্য কোন শব্দ রেকর্ডিং তৈরী করা;

(খ) ইতোপূর্বে একইরূপ অনুলিপি বিক্রয় বা ভাড়া প্রদান করা হউক বা না হউক, শব্দ রেকর্ডিং এর
কোন অনুলিপি বিক্রয় করা বা ভাড়া প্রদান করা অথবা বিক্রয় বা ভাড়া প্রদান করার প্রস্তাব করাঃ

(গ) শব্দ রেকর্ডিং জনগণের মধ্যে প্রচার করা ।

ব্যাখ্যা 1 এই ধারার উদ্দেশ্য পূরণকল্পে, একবার বিক্রয় হইয়াছে এমন অনুলিপি ইতোমধ্যে সার্কুলেশনে
থাকা অনুলিপি বলিয়া গণ্য হইবে ।

১০

 

** কপিরাইট (সংশোধন) আইন, ২০০৫ ছারা ধারা ১৪ এর উপ-ধারা (৪) প্রতিস্থাপিত |

১৫ । কপিরাইট থাকে এমন কর্ম ।- (১) এই ধারার বিধান এবং এই আইনের অন্যান্য বিধানাবলী
সাপেক্ষে, নিম্ললিখিত শ্রেণীর কর্মের কপিরাইট বিদ্যমান, যথা ৪_

(ক) সাহিত্য, নাট্য, সঙ্গীত ও শিল্পসুলভ আদি কর্ম;

(খ) চলচ্চিত্র ছবিঃ

(গ) শব্দ রেকর্ডিং।

(২) ধারা ৬৮ বা ৬৯ প্রযোজ্য হয় এমন কর্ম ব্যতীত উপ-ধারা (১) এ উল্লিখিত কোন কর্মের ক্ষেত্রে
কপিরাইট থাকিবে না,যদি-

(ক) কোন প্রকাশিত কর্মের ক্ষেত্রে, কর্মটি বাংলাদেশে প্রথম প্রকাশিত হয়, বা যেক্ষেত্রে কর্মটি
বাংলাদেশের বাহিরে প্রকাশিত হইবার ক্ষেত্রে, উহার প্রকাশনার তারিখে প্রণেতা, বা এ
তারিখে প্রণেতা জীবিত না থাকিলে, মৃত্যুর তারিখে বাংলাদেশের নাগরিক বা স্থায়ী বাসিন্দা না
হইয়া থাকেন;

(খ) স্থাপত্য শিল্পকর্ম ব্যতীত কোন অপ্রকাশিত কর্মের ক্ষেত্রে, কর্মটি প্রস্তুতের সময় প্রণেতা
বাংলাদেশের নাগরিক অথবা স্থায়ী বাসিন্দা না হইয়া থাকেন ৪
তবে শর্ত থাকে যে, দফা (ক) ও (খ) এ যাহা কিছুই থাকুক না কেন, যদি কোন চলচ্চিত্র

ফিল্ের প্রযোজকের সদর দফতর বা সচরাচর আবাস ফিল্মটি নির্মাণের উন্লেখ্যযোগ্য বা সম্পূর্ণ

সময়ে বাংলাদেশে থাকে তাহা হইলে উক্ত চলচ্চিত্র ফিলর কপিরাইট বহাল থাকিবে ।

(গ) কোন স্থাপত্য শিল্পকর্মের ক্ষেত্রে, কর্মটি বাংলাদেশে অবস্থিত না থাকে;
ব্যাখ্যা ।- যৌথ প্রণেতার কর্মের ক্ষেত্রে, এই উপ-ধারায় উল্লিখিত শর্তাবলী কর্মটির সকল প্রণেতার
ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হইবে ।
(৩) নিম্নবর্ণিত ক্ষেত্রে কপিরাইট বহাল থাবিবে না_
(ক) চলচ্চিত্র ফিল এর ক্ষেত্রে যদি ফিল্াটির মৌলিক অংশ অন্য কোন কর্মের কপিরাইট লঙ্ঘনজনিত

হয়ঃ
(খ) সাহিত্য, নাট্য বা সঙ্গীত কর্ম দ্বারা শব্দ রেকর্ডিং এর ক্ষেত্রে, যদি শব্দ রেকর্ড করিবার সময় উক্ত
কর্মের কপিরাইট লঙ্ঘন করা হয় ।
(৪) চলচ্চিত্র ফিল বা শব্দ রেকর্ডিং এর কপিরাইট এমন কোন কর্মের স্বতন্ত্র কপিরাইটকে প্রভাবিত
করিবে না যে সম্পর্কিত বিষয়ে কর্মটি বা উহার মৌলিক অংশ বা ক্ষেত্রমত, শব্দ রেকর্ডিং তৈরী হইয়াছে ।
(৫) স্থাপত্য শিল্পকর্মের ক্ষেত্রে, কপিরাইট কেবল শৈল্পিক বৈশিষ্ট্য ও ডিজাইনে থাকিবে এবং নির্মাণ
প্রক্রিয়া বা পদ্ধতিতে বিস্তৃত হইবে না ।

১৬ ১৯১১ সনের ২ নং আইনের অধীন নিবন্ধিত বা নিবদ্ধিতব্য ডিজাইন সম্পর্কিত কপিরাইট ।-

(১) পেটেন্টস গ্যান্ড ডিজাইনস গ্যান্ট, ১৯১১ (১৯১১ সনের ২ নং আইন) এর অধীন নিবন্ধিত কোন
ডিজাইনে এই আইনের অধীনে কপিরাইট থাকিবে না ।

(২) পেটেন্টস গ্যান্ড ডিজাইনস গ্যান্ট, ১৯১১ (১৯১১ সনের ২ নং আইন) এর অধীন নিবদ্ধিত হওয়ার
যোগ্য কিন্তু এভাবে নিবন্ধিত হয় নাই এইরূপ যেকোন ডিজাইনের কপিরাইটের অবসান হইবে যখনই উক্ত
ডিজাইনে প্রয়োগ করা হইয়াছে এমন কোন বস্তুর কপিরাইট উহার স্বত্বাধিকারী দ্বারা বা তাহার অনুমতি সহকারে
অন্য কোন ব্যক্তি কর্তৃক শিল্প উৎপাদন প্রক্রিয়ায় পঞ্চশবারের বেশি পুনরুৎপাদন করা হইয়াছে।

10pageok